আইন বিচারআন্তর্জাতিকপরিবেশ ও জীববৈচিত্রফরিদপুরবাংলাদেশসমগ্র ঢাকা
Trending

ভাঙ্গায় ইউএনও, এসিল্যান্ডের অপসারণ চেয়ে মানব বন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল, মহাসড়ক অবরোধ

মোঃ রবিউল ইসলাম ভাংগা ফরিদপুর প্রতিনিধি।
ভাঙ্গা পৌরসভার ভাঙ্গা বাজারের থানা রোড সংলগ্ন ৫৫ নং সদরদী মৌজায়-খাস ৬২ শতাংশ জমি ৮৪ জন ব্যক্তির মধ্যে দোকান নির্মাণের জন্য বরাদ্দের অনিয়মের অভিযোগে ভাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভাঙ্গার সহকারি কমিশনার (ভূমি)র অপসারনের দাবীতে মানববন্ধন. বিক্ষোভমিছিল ও মহাসড়ক অবরোধ করেছে বিক্ষুব্ধ জনতা। সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) সকাল ১০টার দিকে ভাঙ্গা পৌরসভার থানা রোডে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির অর্থ সম্পাদক ও ভাঙ্গা উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান সাহাদাত হোসেন, ভাঙ্গা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ফাইজুর রহমান, উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আইয়ুব মোল্লা, আলগী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ম ম ছিদ্দিক, ভাঙ্গা বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর মুন্সী, প্রমুখ।

ঘন্টাব্যাপি এ মানব বন্ধন শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের ভাঙ্গা বাজার বাসস্ট্যান্ডে যাওয়ার পর বিক্ষুদ্ধ জনতা মহাসড়ক অবরোধ করেন। এ সময়ও নেতৃবৃন্দ ইউএনও, এসিল্যান্ডের অপসারনের দাবীতে বক্তব্য দেন। সকালে মহাসড়ক অবরোধ করায় যানজটের সৃষ্টি হয়। সড়কের দুই পাশে কয়েকশত গাড়ি জমা হয়।

মানবন্ধনে ভাঙ্গা বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর মুন্সী বলেন, এই খাস জমি গরীব ব্যবসায়ী যাদের দোকান নেই তাদেরকে বরাদ্দ দেওয়া যেত। এছাড়া ফুটপাতের ব্যবসায়ীদের মধ্যেও বন্টন করা যেত। এই বরাদ্দ বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে।

আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির অর্থ সম্পাদক সাহাদাত হোসেন বলেন, ভাঙ্গা বাজারের কাঠপট্টিতে ভাঙ্গার ইউএনও, এসিল্যান্ড ভূমিদস্যু দালালদের নিয়ে রাতের আধাঁরে কোটি কোটি টাকা ঘুষ বাণিজ্যের মাধ্যমে জমি বরাদ্দ দিয়েছেন। ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারের কাছে এর বিচার চাই। আমরা প্রয়োজনে ভাঙ্গার লোকজনকে সাথে নিয়ে রক্ত দেব, তবুও এ জায়গা অন্যায় ভাবে কাউকে দখল করতে দেব না।

উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আইয়ুব মোল্লা বলেন, এটি বরাদ্দে অনিয়ম হয়েছে। এখানে একটি পুকুর ছিল। বিনা টেন্ডারে প্রশাসন নিজেরা ভরাট করলেন কিভাবে।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ফাইজুর রহমান বলেন, অনিয়ম ও অবৈধভাবে জমি বরাদ্দ দেওয়ার প্রতিবাদে আমরা এই আন্দোলন করছি। জমি বরাদ্দের নামে প্রশাসন কোটি কোটি টাকার বাণিজ্য করেছে। কোন নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে কিছু লোককে সন্তুষ্ট করার জন্য টাকার বিনিময়ে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

গত ২৩ ডিসেম্বর জমি বরাদ্দ দেওয়ার ২৪ ঘন্টার মধ্যেই বিক্ষোভের কারণে বন্ধ করে দেয় প্রশাসন। গত বৃহস্পতিবার জমি বরাদ্দের প্রতিবাদে ভাঙ্গায় বিক্ষোভ মিছিল হয়।

ভাঙ্গা উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুহাম্মদ আল-আমিন জানান, এটি সরকারি জমি। আগে কিছু অবৈধ দখলদার ছিল। পাশের মাদ্রাসারা নামে কিছু জমি লিজ দেওয়া ছিল। আমরা অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে আবেদন নেই। আবেদন যাচাই বাছাই করে ভাঙ্গার বাসিন্দা ও প্রকৃত ব্যবসায়ী ৮৪ জনকে যথাযথ প্রক্রিয়ায় দোকান নির্মাণের জন্য জমি বরাদ্দ দেই। মাদ্রাসার নামেও জমি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এখানে কোন অনিয়ম হয়নি।

Facebook Comments

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button